ঘরোয়া পদ্ধতিতে আমাশা রোগের প্রতিকার Home Remedies for Diarrhea

ঘরোয়া পদ্ধতিতে আমাশা রোগের প্রতিকার Home Remedies for Diarrhea

বর্তমান যুগে আমাশা সাধারণ রোগ হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমাশা রোগ হলে ঘনঘন পায়খানা হয়। আমাশয় রোগে আক্রান্ত রোগীদের পেটে ব্যথা শরীরের খিঁচুনি হতে পারে। কোন কোন ক্ষেত্রে রোগীর শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পায় এবং জ্বর আসে।

ঘরোয়া পদ্ধতিতে আমাশা রোগের প্রতিকার  Home Remedies for Diarrhea

1. আগের থেকেই আমাশয়ে যাদের আছে তাদের এক গ্রাম মাত্রায় আদা গুঁড়া গরম জলের সাথে খাওয়া এর দ্বারা আম পরিপাক হয়।

2. কাঁচা আম পাতা জাম পাতার রস 2 থেকে 3 চামচ একটু গরম করে খেলে আমাশয় সেরে যাবে, এছাড়া সাদা রক্ত ও বা রক্ত আমাশয় যাদের আছে জামের কচি পাতার রস 2 থেকে 3 চা চামচ একটু গরম করে ছেঁকে নিয়ে খেলে দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে সেরে যায় | সম্ভব হলে ছাগলের দুধ এতে মিশিয়ে নিলে ভালো হয়।

3. ডালিম গাছের ছাল সেদ্ধ করে খেলে আমাশয় সেরে যায়, এটি আমাশয় ও কাজ দেয়।

4. আমাশয় অনেকদিন থেকে হলে অর্থাৎ পুরাতন আমাশয় হলে চার থেকে পাঁচ গ্রাম তেতুল পাতা সেদ্ধ করে চটকে নিয়ে তা সেকে নিতে হবে। বাকি জল টুকু জিরার ফোড়ন দিয়ে খেলে 2 থেকে 3 দিনের মধ্যে বহুদিনের পুরনো এবং পেটে সঞ্চিত আম বেরিয়ে যায়; অবশ্য নতুন আমাশয় এর ক্ষেত্রে টোটকা চিকিৎসায় এটি ব্যবহার হয়ে থাকে।

5. আমাশয় মানে আমিতি সার এবং জ্বর দুটোই রয়েছে | সাধারণত এটি বাচ্চাদের বেশি দেখা যায়, তবে সে ক্ষেত্রে থানকুনি পাতার রস গরম করে থেকে খেতে হবে।

6. রক্ত আমাশয় এ তিন থেকে চার চামচ অল্প গরম করে দুধ মিশিয়ে খেলে অর্শের রক্ত পড়া বন্ধ হয় | এক্ষেত্রে মহিষের দুধ হলে ভাল হয়, শুধু আমাশা রোগে বেতো শাক গুঁড়ো করে দই মিশিয়ে খাওয়া হয় , তবে তার সাথে ডালিমের রস দিয়ে খেলে উপকার পাওয়া যায়।

7. এই রোগে অনেকের পেট কুনকুন করেন, ব্যথা করে, সে ক্ষেত্রে এই মুথার অংশখেলে আম,ব্যথা কমে।8. রক্ত আমাশয় চার থেকে পাঁচ গ্রাম অর্জুন ছাল ছাগলের দুধ মিশিয়ে খেলে সেরে যায়, এখানে একটা কথা জেনে রাখা ভালো, অর্জুন গাছের সব অংশই কষায় রস; এর জন্যই অনেকের কোষ্ঠকাঠিন্য হয় | সেটি লক্ষ্য রাখা দরকার | তবে এটা দেখা যায় দুধে সেদ্ধ অর্জুন গাছের ছাল খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য হবে না।

9. অজীর্ণ হচ্ছে অর্থাৎ ভালো হজম হচ্ছে না অথচ বেশ চব্য চোষ্য করে গুরু ভজন করে চলেছেন তার পরিণতিতে এল আমাশা, তারপর একদিন বাদেই দেখা গেল রক্ত পড়ছে, এছাড়া আমড়ার আঠা তিন থেকে চার গ্রাম আধা কাপ জলে ভিজিয়ে রেখে তার সঙ্গে 1 চা চামচ মিশিয়ে একটু চিনি দিয়ে খেলে দুই দিনের মধ্যেই রক্ত পড়া বন্ধ হয়ে যাবে এবং আমাশয় সেরে যাবে।

10. আমাশয় বা শোথে পায়ের চেটো অর্থাৎ যে অংশটার উপর মধ্যে আমরা হেঁটে বেড়াই সেটা ফুলে যায়, এটি সাধারণত পেটে আম বা অপক্ক মল জমার জন্য; সেক্ষেত্রে কেবলমাত্র কুলেখাড়া পাতার রস বা ডাটা বাদে 4 চা চামচ গরম করে ,বিকালে ও সকালে খেতে হবে, এর সাথে 2 থেকে 5 ফোঁটা মধু দেওয়া চলে এর থেকে ওই ফুলো টা চলে যাবে।

11. আমাশয় এ আম বা মল বেশি পরেনা, কিন্তু সুলুনি বা কোঠানিতে বেশি কষ্ট দেয়, এক্ষেত্রে গোলমরিচ চূর্ণ এক বা দেড় গ্রাম মাত্রায় সকালে বা বিকেলে জলসহ খেলে দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে এই সমস্যা দূর হয়ে যাব