ব্রণ কি? ব্রণ কেন হয় এবং ব্রণ ছাড়ানোর উপায়,

ব্রণ ত্বকের সেবাসিয়াস নামে এক গ্রন্থি থেকে সেবাম নামে এক তৈলাক্ত পদার্থ তৈরি হয়, এই সেবাসিয়াস গ্রন্থির নালির মুখ বন্ধ হয়ে গেলে সেবাম নিঃসরণে বাধাগ্রস্ত হয় এবং তা জমে ত্বকের ওপরে ফুলে ওঠে, যা ব্রণ নামে পরিচিত।

ব্রন হওয়ার কারণ

শরীরের হজমের সমস্যা,গ্যাস ও অম্বলের সমস্যা, বয়সন্ধির হরমোনের প্রভাবে, অ্যালকোহল, অতিরিক্ত পরিমাণে তৈলাক্ত জিনিস খাওয়া, প্রপাইনি ব্যাকটেরিয়া একনিস নামক জীবাণুর কারণে মানুষের শরীরে উৎপন্ন হয়।

ব্রণ কমানোর উপায়

ঘরোয়া উপায়ের মধ্যে আপনি ব্রণ দূর করতে পারেন, ব্রণ দূর করার জন্য আপনাকে কয়েকটি ব্যবস্থা করতে হবে,
শসা, টুথপেস্ট, গ্রিন টি, রসুন, লেবুর রস, অ্যালোভেরা ইত্যাদির মাধ্যমে ঘরোয়া উপায়ে আপনি ব্রণ সারাতে পারবেন।

শসার অনেক গুন আছে তার মধ্যে ব্রণ কমানোর জন্য শসা ব্যবহার করা হয়, শশা কেটে থেতো করে মুখে ব্রনের স্থানে লাগিয়ে 25 থেকে 25 মিনিট পরে ঠান্ডা জল দিয়ে মুখ ধুতে হবে। অথবা শসা কে গোল গোল করে কেটে পরিমান মত জলে সেই গোল করে কাটা শসাকে ডুবিয়ে রাখতে হবে 1 ঘন্টা তারপর সেই জল দিয়ে মুখ ধুয়ে নিবেন বা সেই জল খেয়ে নেবেন, এইভাবে শসা দিয়ে মুখের ব্রণ সারাতে পারবেন।

টুথপেস্ট এর মাধ্যমে আপনি আপনার মুখের গোটা সাজাতে পারবেন, এর জন্য টুথপেস্ট আপনার মুখের চারপাশে ভালো মতো ছড়িয়ে লাগিয়ে রাখতে হবে। প্রথমদিকে অল্প পরিমাণে টুথপেস্ট নিয়ে ব্রণের জায়গায় লাগিয়ে রাখুন যদি অন্য কোন সমস্যা না হয় তাহলে আস্তে আস্তে তুই পরেশের পরিমাণ বাড়ান। যদি আপনার ব্রোনো মুখের তৈলাক্ত ভাব এর জন্য হয় তাহলে তুথপেষ্ট তৈলাক্ত পদার্থ টেনে আপনার ব্রোনো মুছে দেবে।

গ্রিন টি ব্রণের জন্য খুব উপকারী একটি পদার্থ। প্রথমে গরম পানিতে গ্রিন টি বানান, এরপর সেই গরম পানি গ্রিন টি কে ঠান্ডা করুন। গ্রিন টি একবারে ঠান্ডা হওয়ার পরে তুলার মধ্যে ভিজিয়ে গ্রিন টিকে ব্রণের স্থানে লাগান এবং কিছুক্ষণ ধরে মালিশ করুন। যদি টি-ব্যাগ থেকে বানান তাহলে টি-ব্যাগ ব্রণের ওপর রেখে দিন এবং 20 মিনিট পরে মুখ ধুয়ে নিন।

রসুন দিয়ে আপনি অতি সহজে আপনার ব্রন কমাতে পারবেন, রসুন থেকে চলে দুটো রোয়া বার করে সেটি ধুয়ে নিন। এরপর সেই রসুনের রোয়া টিকে থেঁতো করে বা দু’টুকরো করে ব্রণের জায়গায় লাগিয়ে রাখুন প্রায় 5-7 মিনিট পর ঠান্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন।

প্রথমেই লেবুটিকে ভালোমতো ধুয়ে ও কেটে তার রস থেকে বের করুন। এবার সেই লেবুর রসের সঙ্গে দারুচিনি যুক্ত করে রাতে শোবার আগে তুলো দিয়ে ব্রণে লাগিয়ে রাখুন এবং সকালে ঘুম থেকে সেটি ধুয়ে ফেলুন। আপনি শুধু লেবুর রস আপনার ব্রণে ব্যবহার করতে পারেন, এবং 10 মিনিট পরে জল দিয়ে ধুয়ে নিতে পারেন।

অ্যালোভেরা গাছের থেকে অল্প টুকু অ্যালোভেরা কেটে ও ধুয়ে নিন এরপর অ্যালোভেরার চামড়া কিছু দিয়ে কেটে তার ভেতরের জেলটা আপনার ব্রণে লাগার। লক্ষ রাখবেন অ্যালোভেরা জেল লাগানোর সময় হাতের নখ যেন ব্রণ হতে না পারে।
এইভাবে আপনি ঘরোয়া পদ্ধতিতে ব্রণ সহজেই কমাতে পারবেন।

 

বাংলাদেশ সংবাদ

কৌশিক বসাক